নুন্যতম নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত কালকিনি পৌরবাসী

0
264

কালকিনি অফিস: নুন্যতম নাগরিক সুযোগ-সুবিধা থেকে বঞ্চিত মাদারীপুরের কালকিনি পৌরসভাবাসী। তাই নানা সমস্যায় জর্জিত হয়ে পড়েছে সাধারন নাগরিকরা। এ পৌরসভাকে প্রথম শ্রেনীতে উন্নতি করা হয়। কিন’ ব্যস্তবের চিত্র ভিন্ন পেক্ষাপট। এ পৌরসভায় অনেক এলাকাতেই নেই কোন ড্রেনেজ ও বিশুদ্ধ পানির ব্যবস’া। অপরদিকে শোডিয়াম লাইটিং না থাকায় সন্ধার পরই অন্ধকারে পৌর এলাকায় ভুতরে পরিবেশ বিরাজ করছে। এতে করে চুরিসহ বিভিন্ন অপরাদ বেড়ে যাচ্ছে। এদিকে পৌর এলাকার অনেক গ্রামের রাস্তাঘাটের অবস’া খুবই নাজুক। এ সকল সমস্যা নিয়ে যেন পৌর কর্তৃপক্ষের নেই কোন মাথা ব্যাথা।
ভুক্তভোগী ও পৌরসভা সুত্রে জানাগেছে, কালকিনি পৌরসভা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ১৯৯৭ইং সালের তৎকালীন আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে। তখন পৌরসভার প্রতিষ্ঠাতা পৌর প্রশাসক ছিলেন আবুল কালাম আজাদ। এ পৌর এলাকার মোট জনসংখ্যা-৪১৬০৮। ২০১৬ইং সালের ১২ জানুয়ারী পৌরসভা প্রথম শ্রেনীতে উন্নতি হয়। মোট ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে এ পৌরসভা গঠিত। বিগত দিনে দুই-দুইবার পৌরসভার মেয়রের দায়িত্ব পালন করেন বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান তৌফিকুজ্জামান শাহিন। তখন তিনি মেয়য়ের দায়িত্ব পালনকালে পৌরসভার নাগরিকদের তেমন কোন ভাগ্যের উন্নয় ঘটাতে পারেননি। ২০১১ইং সালের ১৭ জানুয়ারী পৌর নির্বাচনে আ’লীগের প্রার্থী খায়রুল আলম খোকন বেপারীকে হারিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে এনায়েত হোসেন মেয়র নির্বাচিত হয়। তিনি দায়িত্ব পালনকালে ওই ৫ বছরেও উন্নয়নের ছোয়া লাগেনি। ফের ২০১৫ইং সালের ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচনে এনায়েত হোসেন আওয়ামীলীগের মনোননয় নিয়ে পূনরায় দ্বিতীয় বারের মত মেয়র নির্বাচিত হন। তখন তার নির্বাচনী ইশতিহারে ছিল উন্নয়নের বিভিন্ন প্রতিশ্রতি। পৌরবাসিকে প্রতিশ্রতি দিয়েছিলেন ডিজিটাল পৌরসভা গড়ার। কিন’ পৌরসভার অনেকগুলো রাস্তাই রয়েছে এখন পর্যন্ত কাঁচা। এমনি কি সংস্কার করা হচ্চেনা কোন রাস্তা। এতে করে সাধারন মানুষের চলাচলে চড়ম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এবং কি এখন পর্যন্ত পৌরসভায় কোন লাইটিং ব্যবস’া করা হয়নি। এতে করে সন্ধ্যার পরেই পৌর এলাকায় অন্ধকারে ভুতরে পরিবেশ্‌ সৃষ্ঠি হচ্ছে। চোর আতঙ্কে মানুষের জানমাল নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে । অপরদিকে ড্রেনেজ ব্যবস’া নাজুক হওয়ায় পৌর এলাকার মাছ বাজারসহ বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্নস’ানে বৃষ্টি হলেই হাটু পর্যন্ত পানি জমে থাকে। এ ছাড়াও পৌর এলাকার অধিকাংশ এলাকায় খাবার পানির তিব্র সংকট রয়েছে। কিন’ নেই বিশুদ্ধ পানির ব্যবস’া। এ দূর্ভোগের শেষ কোথায় এ প্রশ্ন এখন কালকিনি পৌরবাসির।
পৌর এলাকার কাষ্টগড় গ্রামের শিক্ষার্থী শ্রাবনী আক্তার ও নাজমুলসহ বেশ কয়েকজন বলেন, আমাদের দূর্ভোগের কোন শেষ নেই। আমাদের রাস্তা কাচাই রয়ে গেলো। কোন সুযোগ সুবিদা পাইনি এখন পর্যন্ত। একটু বৃষ্টি হলেই আমাদের রাস্তায় হাটু পর্যন্ত কাঁদা-পানিতে একাকার হয়ে যায়। আমরা কলেজে যেতে পারিনা ।এখানে নামে মাত্রই পৌরসভা পৌরসভা রয়েছে।
এ ব্যাপারে কালকিনি পৌরসভার মেয়র মোঃ এনায়েত হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি ফোন রিসিভ করেনি।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here