ঈদের ৭ পর্বের ধারাবাহিক ‘জুনিয়র আর্টিস্ট’

0
136

ঈদ আয়োজনে একুশে টেলিভিশনে ৭ দিনব্যাপী প্রচারিত হতে যাচ্ছে ঈদের বিশেষ ধারাবাহিক নাটক ‘জুনিয়র আর্টিস্ট’, প্রতিদিন সকাল ১০:৩০ মিনিটে নাটকটি সম্প্রচার হবে। রাজীব মণি দাসের রচনায় এবং কাজী সাইফ আহমেদের পরিচালনায় নাটকটির বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন- লুৎফর রহমান জর্জ, মীর সাব্বির, এ্যানি খান, শিপন মিত্র, ইরা শিকদার, আরফান আহমেদ প্রমুখ। এটি প্রযোজনা করেছে ‘লাইফ গোল্ড মিডিয়া’।

গল্পে দেখা যায়, পিয়াল দীর্ঘ বছর নায়ক হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে এফডিসিতে পড়ে থাকে জুনিয়র আটির্স্ট হয়ে। সে স্বপ্ন দেখে একদিন ফিল্মের নায়ক হবে, এই পর্যন্ত সে এক্সটা আর্টিস্ট হয়ে ১৯৯ ছবিতে অভিনয়ও করেছে। তার ইচ্ছে ২০০ নাম্বার ছবিতে মূল চরিত্রে অভিনয় করে সবাইকে চমকে দিবে। কিন্তু হঠাৎ তার ভালোবাসার মানুষ তৃণার বিয়ে নিয়ে উঠে পড়ে লাগে তৃণার মামা জামশেদ সাহেব। পিয়াল এই মুহূর্তে কি করবে বুঝতে পারে না। নাহিদকে নিয়ে মাস্টারপ্ল্যান করে সে। সিনেমায় তাদের মতো যারা উপেক্ষিত এক্সট্রা আর্টিস্ট আছে, যারা সিনেমায় কখনো ভালো রোল করার সুযোগ পায়নি, এটা হবে তাদের জীবনের শ্রেষ্ঠ রোল। অর্থাৎ জামশেদ সাহেবের সামনে কেউ অভিনয় করবে পিয়ালের বাবা হিসেবে, কেউ হবে তার মা, কেউ হবে ভাই, কেউ হবে বোন। যেই কথা সেই কাজ, পিয়ালের নির্দেশনায় তৃণার মামার সামনে বিভিন্ন চরিত্রে নিখুঁত অভিনয় শুরু করেন সবাই। বাপে তাড়ানো, মায়ে খেদানো অখ্যাত এসব এক্সট্রা আর্টিস্টরা এমন চরিত্র পেয়ে নিজেদের ঢেলে দিতে কার্পণ্য করেনি। বরং সত্যিকারের বাবা-মা, ভাই-বোন হয়ে চরিত্রের সাথে মিশে যায়। তাদের নিখুঁত অভিনয় জামশেদ সাহেব ধরতে না পারলেও তার সহকারী লাট্টুর চোখে খটকা লাগে। ক্ষীণ শক্তির লাট্টু কোথায় যেন তাদেরকে দেখেছে তা ঠিক মনে করতে পারে না। কারণ, স্টারদের পিছনে শত শত ছবিতে অভিনয় করলেও কেউ তাদের মনে রাখে না।
ডাক পড়ে আইটেম গার্ল জিনিয়ার, যাকে পরিচয় করানো হয় পিয়ালের ছোট খালা হিসেবে। জিনিয়াকে দেখে জামশেদ সাহেবের মাথা ঘুরে যায়, নিজেকে পঁচিশ বছরের যুবক ভাবতে শুরু করেন তিনি। তৃণার বিয়ে হয়ে গেলেতো আর কোনো দায়বদ্ধতা থাকে না, তখন তিনিও বিয়ে করতে পারবেন। উফ্! কেন যে জিনিয়ার সাথে তার আগে দেখা হয়নি, তাহলে হয়তো অনেক আগেই তার ব্যাচেলর জীবনের অবসান ঘটতো। জিনিয়ার প্রেমে মুগ্ধ জামশেদ তৃণা-পিয়ালের বিয়ে দিতে উঠে পড়ে লাগে। জুনিয়র আর্টিস্টদের জীবনের কাহিনী নিয়ে এগিয়ে যায় গল্পের প্রত্যেকটি চরিত্র।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here